মালদ্বীপ ভ্রমন গাইড, পর্ব – ২|শামীম হাসান এর ব্লগ

বন্ধুরা, যথারীতি হাজির হলাম মালদ্বীপ ভ্রমন গাইডের দ্বিতীয় পর্ব নিয়ে। আজ আলোচনা করবো মালদ্বীপের ভ্রমনযোগ্য জায়গা, যোগাযোগ ব্যবস্থা, হোটেল, খরচপাতি ও কোথায় থাকবেন তা নিয়ে। তো চলুন শুরু করা যাক।

এর আগের পর্বে আমি আলোচনা করেছিলাম মালদ্বীপের প্রাথমিক ভ্রমন তথ্য নিয়ে।

মালদ্বীপ ভ্রমন গাইড – শামীম হাসান এর ব্লগ | পর্ব – ১

এ পর্বে আলোচনা করবো আপনি মালদ্বীপে প্রবেশ করার পর আপনার করনীয় ও অন্যান্য বিষয়াদি নিয়ে।

তো আপনি টিকিট কেটে শ্রীলংকা হয়ে মালদ্বীপ এয়ারপোর্টে পৌছালেন। এবার আপনাকে তাদের প্রথম ইমিগ্রেশন অফিসারের কাছে যেতে হবে। আপনি কেনো এসেছেন ও আপনার পেশা সহ যাবতীয় জিনিস জানতে চাইতে পারে। তাই আপনার সকল কাগজপত্র হাতের কাছেই রাখুন। সবকিছু ঠিক থাকলে আপনার পাসপোর্টে সিল মেরে দিবে। তারা যথেষ্ট ফ্রেন্ডলি। দুশ্চিন্তার কোন কারন নেই।

এয়ারপোর্ট পাস করার পর আপনার প্রথম গন্তব্য হলো আপনার হোটেল। যা আপনি ইতিমধ্যেই Booking.com থেকে বা অন্য কোন ওয়েবসাইট থেকে বুক করেছেন। আপনার খেয়াল রাখতে হবে যে, যদি আপনার হোটেল বুকিং এর মধ্যে ট্রান্সফার সার্ভিস অন্তর্ভুক্ত থাকে তাহলে আপনার হোটেলের গাড়ি আপনার জন্য এয়ারপোর্টে অপেক্ষা করবে। আপনাকে তা খুজে নিতে হবে। তা না হলে আপনাকে অন্য কোন পরিবহনে করে আপনার হোটেলে যেতে হবে। আপনি কাউকে জিজ্ঞাসা করতে পারেন এ ব্যাপারে।

হোটেল বুকিংঃ বলে রাখা ভালো যে, মালদ্বীপ এয়ারপোর্টের একদম কাছাকাছি ও একমাত্র সড়কপথ হলো হুলোমালে নামক শহর। যেখানে আপনি সরাসরি বাসে করেও যেতে পারবেন। অন্য যেখানেই যান না কেনো আপনাকে বোট বা ফেরী ব্যবহার করতে হবে। তাই আমি পরামর্শ দেবো আপনি যথাসম্ভব চেষ্ঠা করবেন হুলেমাল থাকার জন্য। এখানে আপনি ৩০ ডলার থেকে ৬০ ডলারের মধ্যে থাকার হোটেল পেয়ে যাবেন। একটা কথা বলেই নেই যে, এখানে আপনি ১০০০ ডলারের হোটেল ও পাবেন। সেটা আপনার ব্যাপার। আমি শুধু বাজেট প্রাইসিং এর কথাই বলবো।

মালদ্বীপ ভ্রমন গাইড

লোকাল আইল্যান্ড, মালদ্বীপ

হোটেলে পৌছানোর পর আপনি পাশের সী ভিও উপভোগ করতে পারবেন। বিশেষ করে আপনি যদি Beach Palace, Holhumale তে থাকেন তাহলে আপনি মাত্র ১ মিনিট হাটলেই ফ্রি ফ্রি সমুদ্রের পাড়ে বসে সময় কাটানোর একটা দারুন জায়গা পেয়ে যাবেন। যদি বউ নিয়ে যান তাহলে সন্ধাবেলা বসে বসে রোমান্স করার সময় আমাকে মনে মনে একটা ধন্যবাদ দিতে ভুলবেন না যেনো :p

এবার আপনাকে জানাবো কয়েকটি আইল্যান্ড এর বর্ননা যে দুইটি আইল্যান্ড এ গেলে আপনি প্রায় পুরু মালদ্বীপের অনেকটা সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারবেন।

এবার আপনাকে খুজতে হবে মালদ্বীপের আসল সৌন্দর্য। যা আপনি ভালো রিসোর্টে না গেলে পাবেন না। অন্তত একটা ভালো রিসোর্টে একদিন কাটাতে পারেন। দুইটি উপায়ে আপনি রিসোর্টে থাকতে পারেন। একটি হলো তাদের রিসোর্টের রুম ভাড়া করে ও আরেকটি হলো রাতে না থেকে শুধু মাত্র ডে পাস প্যাকেজে ভিজিট করে। আমি ডে পাস প্যাকেজ ই সাজেষ্ট করবো কারন রুম ভাড়া অনেক অনেক বেশি। শুধুমাত্র দেখার জন্য আপনাকে এতো টাকা খরচ করার কোন দরকার নেই।

Kani Club Med: এটি একটি ফাইভষ্টার রিসোর্ট। অত্যন্ত চমৎকার একটি রিসোর্ট যা আপনার ভালো লাগবেই। ডে পাস প্যাকেজের দাম ১৬৫ ডলার। আপনি হোটেলের রিসিপশনে কথা বললেই Kani Club Med এর নাম বললেই তারা আপনাকে সব ব্যবস্থা করে দিবে। সকাল ৯ টায় যাবেন ও বিকাল ৫ টায় চলে আসবেন। এর সাথে আপনার লাঞ্চ বুফে থাকবে ফ্রি ও আনলিমিটেড ড্রিংকস পাবেন। দুপুর ১২ টা থেকে ২ টা পর্যন্ত যত ইচ্ছা তত খাবেন। সাথে সেইলিং রাইড ও স্নোর্কলিং রাইড ফ্রি পাবেন। আর আপনি সেইলিং করতে পারবেন যত ইচ্ছা তত। এক্সট্রা কিছু রাইড পাবেন যা আপনাকে আলাদা পে করে করতে হবে। যেমনঃ প্যারাসেইলিং, ফ্লাই ডাইভিং, জেট ক্সি ইত্যাদি। আর আপনি পুরু আইল্যান্ড ঘুরে দেখতে পারবেন ফ্রি। মনে রাখবেন যে, স্নোর্কলিং হচ্ছে নাকে পাইপ লাগিয়ে সাতরে সমুদ্র দেখা। যা দুপুর ২ টায় শুরু হয়। তাই আপনাকে আগে রিসিপশনে কথা বলে টাইম সম্পর্কে জেনে নিতে হবে। তা না হলে অনেক রাইডের ক্ষেত্রে টাইম অমিল হয়। তাই আগে থেকে জেনে নেওয়াই ভালো হবে। এটিতে একদিন পার করলে আপনার পয়সা উসুল হয়ে যাবে। এটি দেখলে আপনি মালদ্বীপের অনেকটা ধারনা পেয়ে যাবেন। এখানে যেতে হলে আপনার হোটেল থেকে আপনাকে তারা নিয়ে যাবে ও আপনাকে দিয়ে যাবে।যাতায়াত খরচ সহই দাম নেওয়া হয়। এখানে যাওয়ার আগে অবশ্যই আপনি শর্টপ্যান্ট ও পানিতে নামার প্রয়োজনীয় কাপড়চোপড় সাথে রাখবেন। কারন রিসোর্ট এর ভিতর থেকে কোনকিছু কিনতে গেলে তা ১০ গুন বেশি দাম দিয়ে কিনতে হবে।

আমার তোলা ছবি গ্যালারি দেখতে এখানে ক্লিক করুন

আমার ভিডিও দেখতে আমার ইউটিউব চ্যানেলে দেখতে পারেন।

Local Island: প্রথমে তো গেলো ৫ ষ্টার রিসোর্ট। এবার আপনি তাদের স্থানীয় ঘড়বাড়ি দেখার জন্য যেতে পারেন লোকাল আইল্যান্ড এ। ডে পাস প্যাকেজের দাম ৯৯ ডলার।এখানে একটি ফোর ষ্টার হোটেল ও রয়েছে। যেখানে আপনি দুপুরের লাঞ্চ ফ্রি পাবেন প্যাকেজের সাথে। এখানে একটি জায়গা আছে যেখানে আপনি দেখতে পারবেন ন্যাচারাল মাছ। যা আপনাকে মুগ্ধ করবেই। এখানে যেতে হলেও আপনার হোটেল থেকে আপনাকে তারা নিয়ে যাবে ও আপনাকে দিয়ে যাবে।যাতায়াত খরচ সহই দাম নেওয়া হয়।

Male: মালে হলো তাদের রাজধানী। হুলেমাল থেকে আপনাকে প্রথমে হুলেমাল ফেরী টার্মিনাল যেতে হবে। তারপর আপনি মালের ফেরীতে ওঠে মালে ফেরী টার্মিনালে গিয়ে পৌছাবেন। ভাড়া ১৬ রুফির মতো। আমার ঠিক মনে নেই। তার পর আপনি মালে ঘুরে দেখতে পারবেন। একই পথে আপনাকে ফিরতে হবে।

ডাইভিংঃ আপনি যদি সাগরের নিচে গিয়ে স্কুবা ডাইভিং করতে চান তাহলে আপনি হুলেমাল Beach palace হেটেলের থেকে মাত্র ৫-৭ মিনিট হাটলেই একটি ডাইভিং ক্লাব পেয়ে যাবেন। নাম নলো Ocean Junkeis. একটু গুগল সার্চ করলেই পেয়ে যাবেন। দুইটি ডাইভিং এর জন্য খরচ হবে ১৬৫ ডলারের মতো। যদি ক্যামেরা থাকে আপনার তাহলেই ভালো। আলাদা কোন খরচ নাই। তবে ক্যামেরা নিতে হলে আরো ৪০-৬০ ডলার লাগবে। এ ডাইভিং ক্লাবে যোগাযোগ করলে আপনি ফিসিংয়েও যেতে পারবেন। তা আপনার উপর নির্ভর করে। ডাইভিং করার জন্য আগে আপনাকে ট্রেনিং নিতে হবে। তাই হাতে পুরু একদিন সময় নিতে হবে ডাইভিং করার জন্য।

এ্ই গেলো ৪ দিন। বাকি ২ দিন আপনি হুলেমাল সী বীচ দেখে দেখে কাটিয়ে দিতে পারবেন। এই তিনটি জায়গা দেখলেই আপনি মালদ্বীপ সম্পর্কে সকল ধারনা পেয়ে যাবেন বলে আমার মনে হয়। তবে হ্যা, আপনি চাইলে আরো কয়েকটা ফাইভষ্টার রিসোর্ট ভ্রমন করতে পারেন যা নির্ভর করে আপনার উপর। আশাকরি আপনি হানিমুন বা পার্সোনাল ট্যুুর হিসাবে এ ভ্রমন পরিকল্পনাটি ব্যবহার করতে পারেন।

মালদ্বীপ ভ্রমন গাইড, পর্ব – ২|শামীম হাসান এর ব্লগ
3.6 (71.43%) 7 vote[s]