আমরা কি জানি আমরা কিসের ঘোরে আছি? – শামীম হাসান শাকিল এর বাংলা ব্লগ

হঠাৎ অনুভূত হলো, আসলে আমরা কিসের ঘোরে আছি? নিজেই বুঝতে পারছি না আমরা কেনো এতো অহংকার করছি। কিসের বড়াই আর কিসের ক্ষমতা? সবই মূল্যহীন। একদম অনর্থক। আচ্ছা চলুন কিছুক্ষন সময়ের জন্য সবকিছু ভুলে যাই আর একটা ব্যাপার কল্পনা করি যে, আমরা যদি মারা যাই, তবে ১০০ বছর পর কি পৃথিবীর কোন মানুষ আমাদের মনে রাখবে আদৌ?

আপনার ভবিষ্যত প্রজন্মের মধ্যে বড়জোর আপনার নাতি আপনার নাম দাদা হিসাবে মনে রাখবে। তার পরের প্রজন্ম মনে রাখবে কি? আপনি কি আপনার দাদার দাদার নাম বলতে পারেন? আমি শুধু আমার দাদার বাবার নামই বলতে পারি। তার আগের কোন পূর্বপুরুষের নাম আমার অজানা। হয়তো দরকার হয়ে ওঠেনি। একদম অল্প মানুষ আছে, যারা তাদের পূর্বপুরুষদের নাম জানে। আর পৃথিবীর বাকি মানুষজন? আহারে, আপনার ইউনিয়নের সব মানুষ কি আপনাকে চিনে? নাহ। চিনে নাহ। কি অসহার আমরা সময়ের কাছে বুঝতে পারছেন? আমরা কি জানি আমরা কেনো বেচে আছি? আসলে আমরা জানার দরকার মনে করি না। খাচ্ছি, দাচ্ছি। ঘুমিয়ে সময় পার করছি। আমরা মনে করছি আমাদের মৃত্যুর পর সব শেষ। কিন্তু না।

নিচের ছবিটাকে ভালো করে খেয়াল করুন তো।

অহংকার

এই রেখাগুলিকে পৃথিবীর বয়স হিসাবে ধরুন আর বৃত্তটাকে কল্পনা করুন আপনার আয়ুকাল। ধরে নেন, গড় আয়ু ৬০ বছর।  এইবার বুঝতে পারছেন যে, আপনার মতো কতো হেডাম এই পৃথিবীতে কতো জন্মেছিলো? সবাই বিলীন হয়ে গেছে। আপনি ও যাবেন। আপনি মৃত্যুর পর পৃথিবীর কিচ্ছু হবে না। সে তার আপন গতিতে চলতে থাকবে কেয়ামতের আগ পর্যন্ত।  কত মানুষ আসবে যাবে। কেউ কারো কথা মনে রাখবে না। আপনার মতো হাজারো যোদ্বা জীবন সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছে পৃথিবীব্যাপী। আপনি শুধু আপনার পরিবারের অথবা একটা নির্দিষ্ট গোষ্ঠির কাছেই মনে থাকবেন।

একেবারে অল্পকিছু লোক মানুষের মুখে থাকবে হয়তো সাড়াজীবন। কিন্তু সেই রকম মানুষের সংখ্যা হাতে গোনা কয়েক জন। শেক্সপিয়র, নিউটন, ষ্টিভ জবস এর কথা হয়তো মানুষ মনে রাখবে। কিন্তু ধরুন আমাদের দেশের বর্তমান দুই প্রধান মন্ত্রীর কথা। ১০০ বছর পরে শুধুমাত্র কিছু নথি ব্যাতিত কোথাও তাদের নাম নেওয়া হবে না। কিন্তু হয়তো বাংলাদেশ আরো হাজার, লক্ষ বছর স্থায়ী হবে।

মূল কথায় আসি, আপনি হয়তো জীবনে খুব বেশি টাকা কামাতে পারেন নাই। সকাল নয়টায় অফিস করেন আর বিকাল ৫ টায় অফিস থেকে বাসায় আসেন। মাস শেষে বিশ ত্রিশ হাজার টাকা বেতন পান যা দিয়ে আপনার সংসার চলছে। কিন্তু আপনি অসুখী ভাবছেন। কেনো আপনার আলিশান বাড়ি নেই, কোটি টাকার গাড়ি নেই। কিন্তু আপনি কি জানেন যে, আপনি টেনেটুনে সংসার চালিয়েও ৬০ বছর বাচবেন, আর কোটিপতিরা কোটি কোটি টাকা কামিয়েও ৬০ বছর বাচবে। (আমি গড় আয়ু ৬০ বছর ধরে হিসাব করছি)।

আপনি মারা যাওয়ার পর পরিবারের মানুষ যতটা কাঁদবে, সে মারা যাওয়ার পর হয়তো ততটা কাদবে না। নিশ্চই বিশ্বাস করেন যে, অতি বড়লোকদের আবেগ তুলনামূলক কম থাকে। ব্যাস, মাত্র ২০ বছর পর তাকেও তার পরিবারের সবাই ‍ভুলে যা্বে আর আপনাকেও। তাহলে কিসের হতাশা? আপনি জানেন কি যে, আপনার সকল চাহিদা আপনি মিটিয়ে ফেলতে পারলে আপনার কাছে জীবনটা একেবারে অর্থহীন মনে হবে? বিশ্বাস করুন আর নাই করুন এইটাই সত্যি। এইটাই বাস্তব।

তাহলে এইবার কি করতে হবে? যা কিছু আছে তাই নিয়ে সন্তুষ্টি অর্জন করতে হবে। আত্ন সন্তুষ্টি থেকে বড় কোন উপায় নাই নিজেকে সুখি করার। সৃষ্টিকর্তা আপনাকে যা দিয়েছেন তা তিনি সবকিছু জেনে শুনে বুঝেই দিয়েছেন। তাকে উপভোগ করার চেষ্ঠা করুন। মিথ্যে অহংকার করা বোকাদের কাজ। কেনো বোকা হয়ে বাচবেন?

ভালো কাজ করুন। অহংকার, দেমাগ ‍মুছে ফেলুন। ধরে নেন, আমরা সবাই পৃথিবীতে অতিথি। সময় অতিক্রম করতে এসেছি। মনের কাছে সৎ থেকে উপভোগ করুন আল্লাহ তায়ালা আপনাকে যা দিয়েছে তাই।

ভালো থাকুন। সুস্থ থাকুন।

শামীম হাসান শাকিল

আমরা কি জানি আমরা কিসের ঘোরে আছি? – শামীম হাসান শাকিল এর বাংলা ব্লগ
5 (100%) 3 votes
Tagged as: